জহিরাবাদ ইউনিয়নে সরকারী শিশুখাদ্য নিয়ে অনিয়ম

মতলব উত্তর উপজেলার জহিরাবাদ ইউনিয়নে চলছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শিশুখাদ্য নিয়ে অনিয়ম। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে গ্রামের মানুষের সার্বিক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী গ্রামের শিশুদের জন্য পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করার লক্ষে প্রতি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এর মাধ্যমে গরীব অসহায় শিশুদের জন্য মাথাপিছু ৫০০ টাকা বরাদ্দের শিশু খাদ্য বিতরণ এর জন্য নগদ ৫০০ টাকা করে চেয়ারম্যানের বরাবর নগদ অর্থ দেন।

কিন্তু জহিরাবাদ ইউনিয়নের কিছু অসহায় মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদেরকে ৫০০ টাকার পরিবর্তে নিম্নুক্ত খাবারগুলো দেয়া হয় যার বর্তমান বাজার মূল্য ৩০৯ টাকা- (পন্যের গায়ের মূল্যে)।

নিচে শিশুখাদ্যের গায়ের মূল্য তালিকা,

  • তীর সুজি ২ প্যাকেট= ৬৪ টাকা ।
  • স্টিক নুডুলস এক প্যাকেট= ২০ টাকা।
  • বনফুল লাচ্ছা সেমাই এক প্যাকেট= ৩৫ টাকা।
  • ডানো গুঁড়োদুধ এক প্যাকেট২০০ গ্রাম = ১১০ টাকা।
  • চিনি ১ কেজি= ৮০ টাকা।

সর্বমোট= ৩০৯ টাকা।

ইউনিয়নের মানুষের প্রশ্ন হচ্ছে, যে খাবারের দাম গায়ের মূল্যেই ৩০৯ টাকা তবে পাইকারি তো আরো কম হওয়াটা স্বাভাবিক। কেন তাদের এভাবে ঠাকানো হলো, তাদের ন্যায্য ৫০০ টাকার মধ্যে বাকি ২০০ টাকা কারা আত্মসাৎ করলো, কেনই বা গরীব অসহায় শিশুদের তাদের পাওনা থেকে বঞ্চিত করা হলো? সেই সাথে তারা চাঁদপুর ২ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য, মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের সম্মানিত চেয়ারম্যান এবং মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহি অফিসার সহ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এর সুষ্ঠ তদন্তের জন্য নিবেদন করেন।ইউনিয়ন বাসীর বিশ্বাস জনপ্রতিনিধিরা এর সত্যতা যাচাই বাছাই করে এর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

সেই সাথে তারা আরো বলেন শিশুখাদ্যের তদন্তের পাশাপাশি অন্য আরো যত ক্ষাত আছে সব খতিয়ে দেয়ার জন্য, কারন তাদের মতে যারা শিশুখাদ্য নিয়ে এমন কাজ করতে পারেন তারা অন্য সব খাতে কি করে আসছেন সেটা একমাত্র সৃষ্টিকর্তাই জানেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *