সরকার সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে: ওয়ার্কার্স পার্টি

কঠোরতম বিধিনিষেধের মধ্যে আকস্মিকভাবে মাত্র এক দিন সময় দিয়ে রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দেওয়ার ঘোষণাকে ‘বিবেচনাহীন, হঠকারিতাপূর্ণ ও লকডাউনের নামে জনগণের সঙ্গে লুকোচুরি খেলা’ বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জোটসঙ্গী এই দলের পলিটব্যুরোর সভায় এ-বিষয়ক একটি প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়েছে। আজ সোমবার ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেননের সভাপতিত্বে ভার্চ্যুয়ালি দলটির পলিটব্যুরোর সভা হয়। দলের সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশার উপস্থাপনায় ‘করোনা মহামারি পরিস্থিতি ও পার্টির করোনা স্বেচ্ছাসেবক ব্রিগেডসমূহের কাজের পর্যালোচনা’ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা শেষে প্রস্তাবটি গ্রহণ করা হয়।

ওয়ার্কার্স পার্টির ভাষ্যমতে, কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে ‘মালিকদের চাপে’ কারখানা চালুর অনুমতি দিয়েছে সরকার।

প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ‘দেশে করোনা অতিমারি আশঙ্কাজনক মাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকার বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত সারা দেশে ১৪ দিনের বিধিনিষেধ দিয়েছে। কিন্তু আকস্মিকভাবে এক দিনের নোটিশে ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্প, বিশেষ করে তৈরি পোশাক কারখানা চালুর ঘোষণা দেয়, যা পূর্বাপর বিবেচনাহীনতা ও হঠকারিতাপূর্ণ এবং লকডাউনের নামে জনগণের সঙ্গে লুকোচুরি খেলা।’

ওয়ার্কার্স পার্টি বলছে, সরকার সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছে বা করোনা মহামারি রুখতে আন্তমন্ত্রণালয় সমন্বয় নেই। সরকারের এই বিবেচনাহীন সিদ্ধান্ত করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর মিছিলকে আরও বাড়াবে। অন্যদিকে আকস্মিকভাবে কারখানা খুলে দিয়ে দূরদূরান্ত থেকে যাঁরা কাজে যোগ দেবেন, তাঁদের পরিবহনের ব্যবস্থা না করে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে ঠেলে দেওয়া হয়েছে, তা অমানবিকতার চূড়ান্ত।

সভার অপর প্রস্তাবে পার্টির উদ্যোগে কেন্দ্রসহ বিভিন্ন জেলায় করোনা মোকাবিলায় গড়ে ওঠা ‘স্বেচ্ছাসেবক ব্রিগেডগুলোর’ কাজের পর্যালোচনা করে বলা হয়, নিজস্ব সামর্থ্য বাড়িয়ে জনগণকে সম্পৃক্ত করে জনসচেতনতা বৃদ্ধির কাজে পার্টি ও গণসংগঠনের সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের আরও বেশি সক্রিয় হতে হবে। একই সঙ্গে সভায় প্রান্তিক পর্যায়ে মানুষকে টিকা গ্রহণে উদ্বুদ্ধ ও নিবন্ধনের ব্যবস্থা করার জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

আলোচনায় অংশ নেন আনিসুর রহমান মল্লিক, সুশান্ত দাস, মাহমুদুল হাসান মানিক, নুর আহমেদ বকুল, কামরুল আহসান, এনামুল হক এমরান, আমিনুল ইসলাম গোলাপ, বশিরুল আলম, জ্যোতি শংকর, নজরুল ইসলাম হাক্কানী প্রমুখ।

সুত্রঃ প্রথম আলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *